Wednesday, July 24, 2024
বাড়িখেলাএরিকসেনের অম্ল-মধুর অনুভূতি

এরিকসেনের অম্ল-মধুর অনুভূতি

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ১৭ জুন: ম্যাচের আগে ডেনমার্ক কোচ কাসপের হিউমান্দ যেন দম্ভের সুরে বলেছিলেন, ‘আমরাই এ ম্যাচে ফেভারিট’। স্লোভেনিয়া কোচ মাতিয়াশ কেক অবশ্য তখন কিছু বলেনিনি। ডেনিসদের জয়ের আশা ভেস্তে দেওয়ার পর মুখ খুললেন তিনি। বললেন, প্রথমার্ধে তার দল একটু বেশিই সমীহ করে ফেলেছিল ডেনমার্ককে।ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে রোববার স্টুটগার্টে ‘সি’ গ্রুপের ম্যাচে দুই দলের ম্যাচটি ১-১ ড্র হয়। সপ্তদশ মিনিটে এরিকসেন ডেনমার্ককে এগিয়ে নেওয়ার পর ৭৭তম মিনিটে সমতা টানেন এরিক ইয়ানজা।গত ইউরোতে নিজেদের উদ্বোধনী ম্যাচে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মাঠে লুটিয়ে পড়ার পর দীর্ঘ চিকিৎসা নিয়ে ফুটবলে ফেরেন এরিকসেন। ইউরোয় ফিরে প্রথম ম্যাচেই গোলের খাতা খুললেন তিনি, কিন্তু দল না জেতায় ৩২ বছর বয়সী এই মিডফিল্ডারের আনন্দোৎসব মাটি হয়ে গেছে।

“গোল করা চমৎকার ছিল, ভালো সময়ে গোলটি এসেছিল। সেট-পিস থেকে গোল করার বিষয়ে আমরা আলোচনা করেছিলাম এবং সেভাবেই গোলটা করলাম… দূর্ভাগ্যজনকভাবে, ওরাও গোল করল। কিন্তু আমরা গোল পেয়ে শুরুটা ভালো করেছিলাম। ডেনিস সমর্থকদের জন্য বিষয়টি দারুণ ছিল।”“অবশ্যই আমরা জয়ের কল্পনা এবং তিন পয়েন্ট পাওয়ার আশা করেছিলাম, কিন্তু কোনো কোনো ম্যাচে সেটা হয় না। আমাদের আবারও ঘুরে দাঁড়াতে হবে এবং এগিয়ে যেতে হবে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আমাদের পরের ম্যাচটি কঠিন। তিন পয়েন্ট হারানোর অনুভূতি পীড়াদায়ক। এগিয়ে যাওয়ার পর যখন আপনি ভাবছেন জয়ের পথে আছেন, তখন শেষ দিকে এসে পয়েন্ট হারানো সবসময় কষ্টের। আমাদের এখান থেকেই তৈরি হতে হবে।”

ডেনমার্ক কোচ কাঠগড়ায় তুললেন পুরো দলকে। বললেন, ব্যবধান গড়ে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট ছিল না তার দলের প্রচেষ্টা। খেলোয়াড়দের মধ্যে স্নায়ুর চাপ ছিল বলেও মনে করেন তিনি।“আমি মনে করি না, আমরা যথেষ্ট সুযোগ তৈরি করেছি এবং স্কোরলাইন ২-০ করার কাছাকাছিও যেতে পারিনি। আমাদের মধ্যে কিছুটা স্নায়ুর চাপও ছিল। পরবর্তী গোলটি করার জন্য খেলিনি আমরা, আমার মতে, মাঠে আমরা তেমন চেষ্টাই করিনি।”গ্রুপ পর্বে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে সার্বিয়ার মুখোমুখি হবে স্লোভেনিয়া। ডেনমার্ক ম্যাচের আত্মবিশ্বাস দলটির কোচ কেক টেনে নিয়ে যেতে চান পরের ম্যাচে।“হয়তো, প্রথমার্ধে আমরা ডেনমার্ককে একটু বেশিই সমীহ করে ফেলেছিলাম। দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য তা কাটিয়ে উঠি আমরা। এতে আমাদের পারফরম্যান্স আরও ভালো হলো। নিশ্চিতভাবেই এই ম্যাচটি দেখিয়ে দিচ্ছে যে, আমাদের কোথায় উন্নতি করতে হবে। গ্যালারিতে সমর্থকদের উপস্থিতিও এই পরিস্থিতিতে আমাদের জন্য ছিল বাড়তি অনুপ্রেরণার।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য