Friday, May 31, 2024
বাড়িখেলা‘উইম্বলডন জয়ের জন্য সার্ভ’ করার অপেক্ষায় গুয়ার্দিওলা

‘উইম্বলডন জয়ের জন্য সার্ভ’ করার অপেক্ষায় গুয়ার্দিওলা

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ১৫ মে: ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা ধরে রাখার অভিযানে মঙ্গলবার বড় এক বাধা পেরোয় গুয়ার্দিওলার দল। টটেনহ্যামের মাঠে ২-০ গোলের জয়ে নিজেদের সম্ভাবনা উজ্জ্বল করার পাশাপাশি তারা চোট দেয় আর্সেনালের আশায়।৩৭ ম্যাচ শেষে ৮৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ম্যানচেস্টার সিটি, সমান ম্যাচে দুই পয়েন্ট কম আর্সেনালের। শিরোপার চূড়ান্ত ফয়সালা হবে রোববার শেষ ম্যাচে।টটেনহ্যামের বিপক্ষে নিজেদের সেরাটা একদমই মেলে ধরতে পারেনি সিটি। বিশেষ করে, প্রথমার্ধে তাদের চেনা ধার দেখা যায়নি। দ্বিতীয়ার্ধে কিছুটা ছন্দে ফিরলেও সেই বিধ্বংসী চেহারা দেখা যায়নি। তবে এই অর্ধে আসল কাজটি তারা করতে পারে। ৫১তম মিনিটে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন আর্লিং হলান্ড। পরে ৯০ মিনিট শেষে যোগ করা সময়ে এই ফরোয়ার্ডের পেনাল্টি নিশ্চিত করে দেয় মহামূল্য তিন পয়েন্ট।

ম্যাচ শেষে গুয়ার্দিওলা বললেন, যে কোনো মূল্যে জয়ের চাপেই হয়তো দল নিজেদের আসল খেলাটা খেলতে পারেনি।“ওরা ফলাফলের ভাবনা মাথায় রেখে খেলছিল (প্রথমার্ধে)। এরকম করলে নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী পারফর্ম করা যাবে না, প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা হারাতে হবে।”“তবে ওরাও মানুষ। ওদের চাপ আমি বুঝতে পারি। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে আর্সেনালও (গত রোববার) খুব ভালো খেলতে পারেনি। কিন্তু তারা জানত, এখানে জিততে না পারলে শিরোপা জিততে পারবে না। শেষ পর্যন্ত ম্যাচ বের করে নিয়েছে তারা।”ম্যাচ শেষে ম্যান সিটির ড্রেসিং রুমে স্বস্তি থাকলেও উচ্ছ্বাসের বাড়াবাড়ি নেই। বরং শেষ দিনের চ্যালেঞ্জ নিয়েই ভাবছেন গুয়ার্দিওলা।“লকার রুমে আমরা খুশি ছিলাম। তবে ওরা জানে, কাজ এখনও শেষ হয়নি। ওরা জানে, রোববার কাজটা সহজ হবে না মোটেও। আগে কোনো দল যা করতে পারেনি, তা করতে হলে ম্যাচটি জিততে হবে আমাদের।”

‘আগে কোনো দল করতে পারেনি’ মানে প্রিমিয়ার লিগের টানা চার শিরোপা। আগের তিন মৌসুমে টানা শিরোপাজয়ী ম্যানচেস্টার সিটি এবার অনন্য সেই কীর্তিরই পথে। সেজন্য অন্য কোনো দলের দিকে তাকানোর প্রয়োজন তাদের নেই। রোববার শেষ ম্যাচে ওয়েস্ট হ্যামকে স্রেফ হারালেই চলবে। আর্সেনালের সমীকরণ অনেক কঠিন। এভারটনকে শুধু হারালেই চলবে না, সিটির ম্যাচের ফলও তাদের পক্ষে আসতে হবে।ভাগ্য নিজেদের হাতে থাকলেও কাজটাকে ভীষণ কঠিন বলেই মনে করেন গুয়ার্দিওলা। তবে প্রিমিয়ার লিগের মতো প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ লিগে এমন উত্তেজনা তার মতে স্বাভাবিকই। অতীতের কিছু উদাহরণও মেলে ধরলেন তিনি। দলের জন্য তার পরামর্শ, শান্ত থেকে চাপ দূরে সরিয়ে খেলার চেষ্টা করা।

“ওয়েস্ট হ্যামের বিপক্ষেও রোববার একই ব্যাপার থাকবে… আমরা চাপ অনুভব করব। কয়েক মৌসুম আগে অ্যাস্টন ভিলার বিপক্ষে ম্যাচটির কথা মনে করুন (২০২১-২২), ম্যাচের ১৫ মিনিট বাকি থাকতেও ২-০তে পিছিয়ে ছিলাম , কুইন্স পার্ক রেঞ্জার্সের বিপক্ষে আগুয়েরোর সেই গোল ৯৩তম মিনিটে (২০১১-১২)… এসব এখানে স্বাভাবিক।”“টেনিস খেলোয়াড়রা যেমন বলে থাকেন, ‘উইম্বলডন জয়ের জন্য এই সার্ভ করা’, লিগের শেষ ম্যাচটি এরকম, সবচেয়ে কঠিন। এজন্যই আমরা কথা বলছি ও আলোচনা করছি যেন সবাই রিল্যাক্সড থাকে এবং যার যা করা দরকার, তা যেন করতে পারে। এই তো।”গুয়ার্দিওলার দল ম্যাচটি খেলবে ঘরের মাঠে। দর্শকদের কাছেও তাই প্রেরণা জোগানোর আর্তি জানিয়ে রাখলেন কোচ।

“আমরা জানি, আমরা কোন লক্ষ্যে খেলতে নামব। টেনশন থাকবেই। প্রতিপক্ষও খুব ভালো। এজন্যই কাজটা কঠিন, আমরা জানি। সবাই মাঠে আসুন ও গলা ফাটিয়ে সমর্থন দিন। এই ধরনের ম্যাচগুলি বেশি কঠিন, কিন্তু কাজটা আমাদেরকে করতেই হবে। একটি দিন ছুটি কাটাব আমরা, পরের দুই দিন প্রস্তুতি নেব এরপর নিজেদের সেরাটা উজাড় করে দেব।”কোচের কথার সুর কাইল ওয়াকারের কণ্ঠেও। ম্যানচেস্টার সিটির অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার বললেন, চাপকে জয় করেই প্রাপ্তির পূর্ণতায় ডুব দিতে চান তারা।“আমরা রিকভার করব, প্রস্তুতি নেব এবং এরপর আরেকটি ফাইনালে খেলব ওয়েস্ট হ্যামের বিপক্ষে। আশা করি, দারুণ এই ক্লাবের হয়ে আমরা ইতিহাস গড়তে পারব।”“কাজ শেষ হওয়ার ধারেকাছেও আমরা এখনও নেই। শেষ দিনে বিশাল চাপ থাকবেই। চাপকে যদি উপভোগ না করি, তাহলে আমরা ভুল পেশায় ও ভুল ক্লাবে আছি। আশা করি, জয়টি আমরা পাব।”

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য