Sunday, June 23, 2024
বাড়িখেলা‘আমরা বার্সা, আমরা দুই গোল খেয়ে তিন-চার গোল করতে পারি’

‘আমরা বার্সা, আমরা দুই গোল খেয়ে তিন-চার গোল করতে পারি’

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ৩০ এপ্রিল: চোখ রাঙাচ্ছিল আরও একটি পরাজয়। পিছিয়ে থেকে প্রথমার্ধ শেষ করেছিল বার্সেলোনা। তবে দ্বিতীয়ার্ধে শঙ্কা উড়িয়ে স্পষ্ট ব্যবধানের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে তারা। হ্যাটট্রিক করে দলের ঘুরে দাঁড়ানোয় সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখা রবের্ত লেভানদোভস্কি ম্যাচের পর বললেন, পিছিয়ে পড়লেও প্রবলভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর বিশ্বাস তাদের ছিল।লা লিগায় সোমবার ঘরের মাঠে ফের্মিন লোপেসের গোল ২২ মিনিটে এগিয়ে দেয় বার্সেলোনাকে। তবে ২৭ ও ৩৮তম মিনিটে দুটি গোল করে এগিয়ে যায় ভালেন্সিয়া।

প্রথমার্ধের শেষ দিকে বড় ধাক্কা খায়নি ভালেন্সিয়া। বক্সের বাইরে হাত দিয়ে বল ঠেকিয়ে লাল কার্ড দেখেন জিওর্জি মামারদাশভিলি। একজন কম নিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে আর সেভাবে দাঁড়াতে পারেনি তারা। এই অর্ধেই তিনটি গোল করেন লেভানদোভস্কি। ৪৯তম মিনিটে তার হেড সমতায় ফেরায় দলকে। ৮২তম মিনিটে তার হেডেই এগিয়ে যায় দল। ৯০ মিনিট শেষে যোগ করা সময় দুর্দান্ত ফ্রি-কিক থেকে গোল করে লা লিগায় নিজের প্রথম হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন ৩৫ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড। ৪-২ গোলে জিতে মাঠ ছাড়ে বার্সেলোনা। 

এই ম্যাচের আগে রেয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে লা লিগার শিরোপা লড়াই থেকে একরকম ছিটকে গেছে বার্সেলোনা। এর আগের ম্যাচে পিএসজির কাছে বিধ্বস্ত হয়ে বাদ পড়ে গেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে। এই ম্যাচে শেষ পর্যন্ত জিততে পেরে লেভানদোভস্কির কণ্ঠে ছিল স্বস্তি। “আমরা খুশি যে তিন পয়েন্ট পেয়েছি। যদিও ম্যাচে সবকিছু সবসময় আমাদের পরিকল্পনা মতো হয়নি। তবে এটা ফুটবল। প্রতিপক্ষও শক্তিশালী ছিল।”“আমাদের কাজটা সহজ ছিল না। প্রথমার্ধে ওরা খুব বেশি জায়গা দেয়নি আমাদের। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হলো, বিশ্বাস রাখা। আমরা বার্সা এবং আমরা জানি যে, যদিও আমরা দুই গোল খেয়েছি, তিন-চার গোল আমরা করতে পারি।”

 “অবশ্যই দুটি গোল আমাদের হজম করা উচিত হয়নি। তবে ফুটবলে এরকম হতেই পারে। আমরা জানতাম, আরও গোল আমরা করতে পারি। ১-০ গোলে জয়ের চেয়ে ৪-২ গোলের জয়ই আমার কাছে বেশি ভালো লাগে।”১১ পয়েন্ট এগিয়ে থাকা রেয়াল মাদ্রিদের কাছে লা লিগার শিরোপা হারানো এখন মেনেই নিয়েছে বার্সেলোনা। তবে মৌসুমটা ভালোভাবে শেষ করতে মরিয়া লেভানদোভস্কি। লিগে তাদের পরের ম্যাচ আগামী শনিবার জিরোনার বিপক্ষে, রানার্স আপ হওয়ার লড়াইয়ে যেটি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। আপাতত তিনি তাকিয়ে সেদিকে। 

“এখনও পাঁচটি ম্যাচ বাকি আছে আমাদের। দলের পয়েন্ট কত, এটা এখন গুরুত্বপূর্ণ নয়। আমাদের মানসিকতা এখন এমনভাবে গড়ে নিতে হবে যে, প্রতিটি ম্যাচই যেন আমরা জিততে পারি এবং আগ্রাসী ফুটবল খেলতে পারি, সমর্থকদের যেন আনন্দ দিতে পারি। সামনের সব ম্যাচই জয়ের চেষ্টা করব।”“গত দুই ম্যাচ আমাদের ভালো কাটেনি। জিততে পারিনি। কিন্তু মানসিকতা এমন থাকতে হবে যে, পরের ম্যাচ জয়ের সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে। আজকে আমরা ভালো খেলেছি এবং এখন জিরোনা ম্যাচ নিয়ে ভাবব আমরা।”৩৩ ম্যাচে ৭৩ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে এখন বার্সেলোনা, দুই পয়েন্ট কম নিয়ে তিনে জিরোনা। 

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য