Monday, May 16, 2022
বাড়িবিশ্ব সংবাদতালেবানের বিরুদ্ধে যুদ্ধের অঙ্গীকার সাবেক আফগান জেনারেলের

তালেবানের বিরুদ্ধে যুদ্ধের অঙ্গীকার সাবেক আফগান জেনারেলের

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২৯ এপ্রিল।  আফগানিস্তানের পূর্ববর্তী প্রশাসনের অধীনে থাকা সেনাবাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ এক কর্মকর্তা বলেছেন, তিনি এবং সাবেক অনেক সেনা ও রাজনীতিকরা তালেবানের বিরুদ্ধে নতুন এক যুদ্ধ শুরুর প্রস্তুতি নিচ্ছেন।লেফটেনেন্ট জেনারেল সামি সাদাতের মতে, তালেবানের ৮ মাসের শাসনে অনেক আফগানই বুঝতে পেরেছে সামরিক অভিযানই এগিয়ে যাওয়ার একমাত্র পথ।

ঈদের পর আগামী মাসেই এই অভিযান শুরু হতে পারে, সেসময়ই তিনি আফগানিস্তানে ফেরারও পরিকল্পনা করছেন বলে বিবিসিকে জানিয়েছেন সাদাত।

গত বছরের অগাস্টে সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে। মাত্র ১০ দিনের মধ্যেই তারা পুরো দেশ নিজেদের কব্জায় নিয়ে নেয়; কাছাকাছি সময়ে মার্কিন নেতৃত্বাধীন নেটো জোটও তাদের ২০ বছরের সামরিক অভিযান শেষ করে দেশটি ছেড়ে যায়।নিজেদের পরিকল্পনা নিয়ে প্রথমবার কথা বলা লেফটেনেন্ট জেনারেল সাদাত বলেছেন, আফগানিস্তানকে তালেবানমুক্ত করে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করতে ‘আমাদের শক্তির মধ্যে যা যা করা দরকার, করবো’।“যতক্ষণ না আমরা স্বাধীনতা পাই, যতক্ষণ না মতের স্বাধীনতা পাই, আমরা লড়াই চালিয়ে যাবো,” বলেছেন তিনি।

আগের সেনাবাহিনীতে জেনারেলের দায়িত্ব পালন করা সাদাত তালেবানরা যেভাবে নারী ও মেয়েদের অধিকারের ওপর কঠোর বিধিনিষেধসহ দেশজুড়ে ফের কট্টর শাসন চাপিয়ে দিচ্ছে সেদিকে নির্দেশ করে বলেন, তাদের কর্তৃত্ববাদী শাসনব্যবস্থা বাতিল করে নতুন অধ্যায় শুরুর এখনই সময়।

“তালেবানের ৮ মাসের শাসনে আফগানিস্তানে আমরা যা দেখেছি, তা আরও ধর্মীয় বিধিনিষেধ, ভুল উদ্ধৃতি, ভুল ব্যাখ্যা ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে পবিত্র কোরানের ভাষ্যের অপব্যবহার ছাড়া আর কিছুই নয়,” বলেছেন তিনি।

সাদাত প্রথমে তালেবানকে এক বছর সময় দিয়ে তারা বদলায় কিনা তা দেখতে চেয়েছিলেন।“দুর্ভাগ্যজনকভাবে, প্রতিদিনই আপনাকে জেগে তালেবানদের নতুন কোনো অপকর্ম দেখতে হয়। দেখতে হয় মানুষকে নির্যাতন, খুন, গুম, খাদ্য ঘাটতি, অপুষ্টিতে ভোগা শিশু,” বলেন তিনি।বিবিসিকে সাদাত জানান, প্রতিদিন তিনি আফগানিস্তান থেকে শত শত মেসেজ পাচ্ছেন, তাতে এই পরিস্থিতিতে তিনি কী করতে যাচ্ছেন, তা জানতে চাওয়া হচ্ছে।বিবিসি বলছে, চার দশকেরও বেশি সময় ধরে যুদ্ধ দেখে দেখে ক্লান্ত আফগানরা নতুন কোনো যুদ্ধে ধকল নিতে চাইবে কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। বছরের পর বছর যুদ্ধ, উদ্বাস্তু হওয়া, তীব্র অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে টিকে থাকার লড়াই তাদেরকে এমনিতেই ক্লান্ত করে রেখেছে।

নেটোর সঙ্গে তালেবানের যুদ্ধের ক্ষত বহন করা আফগানিস্তানের গ্রামাঞ্চলগুলো এখন তুলনামূলক শান্ত সময় পার করছে; নেটো আর আফগানবাহিনীর জঙ্গিবিমান তাদের আকাশে নেই, তালেবানের হামলাও বন্ধ।

আফগানিস্তানের পশ্চিমাপন্থি সরকারের শেষ মাসগুলোতে দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ হেলমান্দে সরকারি বাহিনীগুলোর দায়িত্বে থাকা সাদাতের বিরুদ্ধেও এমন হামলা চালানোর নির্দেশ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে, যেগুলোতে বেসামরিকদের প্রাণ গেছে।তিনি এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।গত বছরের অগাস্টে তাকে আফগান বিশেষ বাহিনীর প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়; তিনি যেদিন কাবুল নামেন সেদিনই তালেবান রাজধানীর নিয়ন্ত্রণ নেয় এবং সাদাতের কমান্ডার-ইন-চিফ আশরাফ গণি দেশ ছেড়ে পালান।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য