Friday, May 31, 2024
বাড়িবিশ্ব সংবাদপ্রাণঘাতী রকেট হামলার দায় স্বীকার হামাসের, রাফায় হামলা ইসরায়েলের

প্রাণঘাতী রকেট হামলার দায় স্বীকার হামাসের, রাফায় হামলা ইসরায়েলের

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক, ৬ মে: ফিলিস্তিনের ছিটমহল গাজার রাফা শহরের নিকটবর্তী কেরেম শালম ক্রসিংয়ে এক রকেট হামলায় তিন ইসরায়েলি সেনা নিহত হয়েছে বলে ইসরায়েল জানিয়েছে। ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাসের সশস্ত্র শাখা এ হামলার দায় স্বীকার করেছে। এরপর রোববার রাফায় ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে অন্তত ১৯ জন নিহত হয়েছে বলে ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী জানায়, রাফা থেকে ওই ক্রসিং এলাকা লক্ষ্য করে ১০টি রকেট ছোড়া হয়, তারপর থেকে ওই ক্রসিং দিয়ে গাজায় ত্রাণবাহী ট্রাকের প্রবেশ বন্ধ আছে। অন্য ক্রসিংগুলো খোলা আছে।

হামাসের সশস্ত্র শাখা জানিয়েছে, ক্রসিংয়ের পাশে ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর একটি ঘাঁটিতে রকেট ছুড়েছে তারা। কিন্তু তারা কোথা থেকে রকেটগুলো ছুড়েছে তা নিশ্চিত করেনি।  হামাসের গণমাধ্যম ওই সশস্ত্র শাখার ঘনিষ্ঠ এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে জানিয়েছে, বাণিজ্যিক ক্রসিংটি রকেট হামলার লক্ষ্যস্থল ছিল না। গাজার ২৩ লাখ বাসিন্দার প্রায় অর্ধেক দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর রাফায় গিয়ে আশ্রয় নিয়েছে আছে। শহরটি মিশরের সীমান্ত সংলগ্ন। ফিলিস্তিনি চিকিৎসা কর্মীরা জানিয়েছেন, হামাসের ওই হামলার কিছুক্ষণের মধ্যেই রাফার একটি বাড়িতে বিমান হামলা চালায় ইসরায়েল আর তাতে তিনজন নিহত ও বেশ কয়েকজন আহত হন। 

ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী এই পাল্টা হামলা চালানোর কথা নিশ্চিত করেছে, জানিয়েছে রয়টার্স। তারা বলেছে, হামাসের রকেটগুলো যেখান থেকে ছোড়া হয়েছে সেখানে লঞ্চারে আঘাত হেনেছে তারা, পাশাপাশি নিকটবর্তী একটি ‘সামরিক অবকাঠামো’ও লক্ষ্যস্থল করা হয়েছে। এক বিবৃতিতে ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী বলেছে, “রাফা ক্রসিংয়ের পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে রকেটগুলো ছুড়েছে হামাস। সন্ত্রাসবাদী সংগঠনটি মানবিক অবকাঠামো ও স্থানের অপব্যবহার করছে আর গাজার বেসামরিক জনগণকে মানব ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে চলছে, এটি তার পরিষ্কার উদাহরণ

।” বেসামরিকদের ‘মানব ঢাল’ হিসেবে ব্যবহারের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে হামাস।  গাজার স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, রোববার মধ্যরাতের ঠিক আগে রাফার আরেকটি বাড়িতে বিমান হামলা চালায় ইসরায়েল, এতে একটি বাচ্চাসহ অন্তত নয়জন নিহত হয়।   এদের নিয়ে রোববার রাফায় ইসরায়েলের হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে অন্তত ১৯ জনে দাঁড়িয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।   ইসরায়েল রাফায় আক্রমণ চালিয়ে শহরটিতে লুকিয়ে থাকা হামাস বাহিনীকে নির্মূল করার প্রত্যয় জানিয়েছে। কিন্তু গাজার অর্ধেক বাসিন্দা আশ্রয় নিয়ে আছে যেখানে সেখানে বড় ধরনের সামরিক অভিযান মারাত্মক মানবিক বিপর্যয় দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা আন্তর্জাতিক মহলের। রাফায় এ ধরনের কোনো অভিযান না চালাতে ইসরায়েলের ওপর ব্যাপক চাপ সৃষ্টি করেছে তারা।  গাজায় সাত মাস ধরে চলা যুদ্ধে একটি বিরতি টানার জন্য কায়রোতে আলোচনা চলছিল, কিন্তু রোববারের এসব হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনায় যুদ্ধবিরতির আশা ক্ষীণ হয়ে পড়েছে। 

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য