Wednesday, February 8, 2023
বাড়িবিশ্ব সংবাদভর্তির ৭১ বছর পর স্নাতক

ভর্তির ৭১ বছর পর স্নাতক

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক,  ১২ ডিসেম্বর: পড়ালেখার ক্ষেত্রে বয়স যে কোনো বাধা হতে পারে না, তা যেন প্রমাণ করলেন ৯০ বছর বয়সী জয়েস ডিফাউ। বিশ্ববিদ্যালয়ের চৌকাঠে যেদিন প্রথম পা রেখেছিলেন, তখন তিনি তরুণী। বছর কয়েক গড়াতেই বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়া বন্ধ হয় তাঁর। এরপর বহু বছর ছিলেন পড়াশোনা থেকে বিচ্ছিন্ন। শেষ পর্যন্ত ভর্তির ৭১ বছর পর স্নাতক শেষ করলেন তিনি।জয়েস ডিফাউ যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দা। ১৯৫১ সালে নর্দান ইলিনয় ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হয়েছিলেন। শুরু করেন গার্হস্থ্য অর্থনীতিতে পড়াশোনা। এরই মধ্যে একদিন তাঁর জীবনে আসেন ডন ফ্রিম্যান নামের এক ব্যক্তি। ১৯৫৫ সালে দুজন বিয়ে করেন। বিয়ের আগেই কলেজে যাওয়া বন্ধ করেন জয়েস। এই দম্পতির কোলে এসেছিল তিন সন্তান। স্বামী ডন ফ্রিম্যানের মৃত্যুর পর আবার বিয়ে করেছিলেন জয়েস। নতুন সংসার পাতেন রয় ডিফাউ নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে। এই সংসারে তাঁর আরও ছয়টি সন্তান হয়। বর্তমানে জয়েসের ১৭ জন নাতি-নাতনি। আর এই নাতি-নাতনিদের ঘরে রয়েছে ২৪ সন্তান।

জীবনের শেষভাগে এসে ২০১৯ সালে জয়েসের শখ জাগে পড়াশোনা শেষ করার। পরে নর্দান ইলিনয় ইউনিভার্সিটিতে আবার ভর্তি হন তিনি। জয়েস বলেন, ‘আমার মনে হয়, আমি আফসোস করেছিলাম যে কেন পড়ালেখা শেষ করিনি। এরপর আমার নাতি-নাতনিরা আবার কলেজে ভর্তি হওয়ার জন্য উৎসাহ দেয়।’এবারের কলেজজীবন জয়েসের জন্য অনেকটাই ভিন্ন ছিল। বয়সের কারণে তাঁকে আর কলেজ ক্যাম্পাসে যেতে হয়নি। বাসায় বসেই কম্পিউটারের মাধ্যমে অনলাইনে ক্লাস করেছেন। করোনাকালেও এভাবেই পড়ালেখা চালিয়ে গেছেন। এভাবে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার তিন বছর পর স্নাতক শেষ হয়েছে তাঁর। কয়েক দিনের মধ্যেই আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁর হাতে তুলে দেওয়া হবে স্নাতকের সনদ।কেমন লাগছে প্রশ্নের জবাবে জয়েস বলেন, ‘কোনো কিছু শুরুর পর তা শেষ করাটা বেশ আনন্দের।’ তাঁর উপদেশ, ‘হাল ছাড়বেন না। আমি জানি, এটা হয়তো কঠিন হতে পারে। তবে জীবনের প্রতিটা জিনিসের ভালো ও খারাপ সময় আসে।’

 

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য