Wednesday, June 12, 2024
বাড়িরাজ্যসহায়ক মূল্যে ধান ক্রয় শুরু হবে ১৫ জুন থেকে : সুশান্ত

সহায়ক মূল্যে ধান ক্রয় শুরু হবে ১৫ জুন থেকে : সুশান্ত

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১০ জুন : কৃষকদের উৎপাদিত ধানের সঠিক মূল্য প্রদান করতে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাস থেকে ধান ক্রয় করা শুরু করা হয়েছে। প্রতিবছর খারিফ ও রবি মরশুমে তাদের কাছ থেকে ধান ক্রয় করা হয়। আগামী ১৫ জুন থেকে চলতি বছর রবি মরশুমের ধান রাজ্য সরকার কৃষকদের কাছ থেকে সহায়ক মূল্যে ক্রয় করবে। রাজ্যস্তরে এর আনুষ্ঠানিক সূচনা করা হবে দক্ষিন ত্রিপুরা জেলার শান্তিরবাজার মহকুমায়।

এই কার্যক্রম ৩১ জুলাই পর্যন্ত চলবে। সোমবার সচিবালয়ের সাংবাদিক সম্মেলন করে এই বিষয়ে জানান খাদ্য ও জনসংভরন দপ্তরের মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী। তিনি জানান, রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় সহায়ক মূল্যে ধান ক্রয় করার জন্য মোট ৩১ টি অস্থায়ী ধান ক্রয় কেন্দ্র খোলা হবে। এই মরশুমে ১৬ হাজার মেট্রিক টন ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। এই জন্য সহায়ক মূল্য বাবদ মোট প্রায় ৩৫ কোটি টাকা ব্যয় হবে, যা পরবর্তীতে ভারত সরকার দ্বারা রিইমবার্সমেন্ট করা হবে। বর্তমানে ধানের সহায়ক মূল্য কুইন্টাল প্রতি ২,১৮৩ টাকা। যা ভারত সরকার দ্বারা নির্ধারিত। এছাড়া, এই ক্ষেত্রে অপারেশনাল কস্ট বাবদ রাজ্য সরকারের কোষাগার থেকে প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যয় হবে বলে জানান তিনি। আরো বলেন, ২০১৮ সাল থেকে এখন পর্যন্ত সরকারী উদ্যোগে রাজ্যে মোট প্রায় ১ লক্ষ ৯৩ হাজার মেট্রিক টন ধান ক্রয় করা হয়েছে। সহায়ক মূল্য বাবদ প্রায় ৩৭২ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে।

যা সরাসরি সংশ্লিষ্ট কৃষকদের নিজ নিজ ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে প্রদান করা হয়েছে। এদিনের সাংবাদিক সম্মেলনে মন্ত্রী আরো একটি সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি বলেন, এফসিআই থেকে রাজ্যের সরকারী খাদ্য গোদামে গনবণ্টনের জন্য খাদ্যশস্য পরিবহন এবং ন্যায্যমূল্যের দোকানে এই খাদ্যশস্য সহ অন্যান্য রেশন সামগ্রী সঠিক সময়ে পৌঁছাতে পরিবহনের কাজে খাদ্য দপ্তর টেন্ডারিং এর মাধ্যমে ট্রান্সপোর্ট কনট্রাক্টর নিযুক্ত করে থাকে। কিন্তু ট্রান্সপোর্ট কনট্রাক্টর দ্বারা সরবরাহ করা মালবাহী ট্রাক যথেষ্ট না হওয়ায় উক্ত কাজের জন্য খাদ্য দপ্তর প্রায়ই নিজস্ব মালবাহী ট্রাক ব্যাবহার করে থাকে। এতদিন পর্যন্ত খাদ্য দপ্তরের কাছে ১৭ টি এই ধরনের ট্রাক ছিল। বিগত কয়েক বছরে রাজ্যে গনবন্টন ব্যাবস্থার অধীনে ভোক্তাদের সংখ্যা একদিকে যেমন বৃদ্ধি পেয়েছে, অন্যদিকে নতুন নতুন সামগ্রীও যোগ করা হয়েছে। এর ফলে বর্তমানে রেশন সামগ্রীর পরিবহন সহ সরকারী উদ্যোগে ক্রয় করা ধান মিলগুলিতে পরিবহন ও মিলিং -এর পর উৎপাদিত চাল সরকারী খাদ্য গোদামে পরিবহন সম্পর্কীত কাজের লোড আগের থেকে অনেকটাই বৃদ্ধি পেয়েছে। তা বিবেচনা করে খাদ্য দপ্তর প্রায় ১ কোটি ৮৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে আরো ৫ টি নতুন ট্রাক ক্রয় করেছে। ১১ জুন আগরতলার এ ডি নগর স্থিত সেন্ট্রাল স্টোরে এই ট্রাকগুলির আনুষ্ঠানিক ফ্লেগিং অফ করা হবে। মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী সাংবাদিক সম্মেলনে আরো জানান, খাদ্য দপ্তরের অধীনস্থ লিগাল মেট্রোলজি অর্গানাইজেশনের রাজ্যে বর্তমানে ১৭ টি মহকুমায় সেকেন্ডারী স্ট্যান্ডার্ড ল্যবরেটরী বিল্ডিং রয়েছে। সম্প্রতি দক্ষিন ত্রিপুরা জেলার শান্তিরবাজার মহকুমায় আরো একটি এই ধরনের সেকেন্ডারী স্ট্যান্ডার্ড ল্যবরেটরী বিল্ডিং তৈরীর কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এই কাজের জন্য যাবতীয় অর্থ কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে বরাদ্দ করা হয়েছে। এই নতুন ভবনটি আগামী ১৫ জুন আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হবে বলে সাংবাদিক সম্মেলনের মধ্য দিয়ে জানান মন্ত্রী সুশান্ত চৌধুরী। আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে মন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সংশ্লিষ্ট দপ্তরের আধিকারিক।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য