Wednesday, June 19, 2024
বাড়িরাজ্যপঞ্চায়েত প্রধানের চক্রান্তে সামাজিক ভাতা থেকে বঞ্চনার অভিযোগ ৯০ বছরের বৃদ্ধার

পঞ্চায়েত প্রধানের চক্রান্তে সামাজিক ভাতা থেকে বঞ্চনার অভিযোগ ৯০ বছরের বৃদ্ধার

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১৯ এপ্রিল : রাষ্ট্রবাদী সরকারের পাঁচ বছর পর পুনরায় সরকারে প্রতিষ্ঠিত হলেও ঘরে পৌঁছায়নি সুশাসন জামানার সামাজিক ভাতা। কমলাসাগর চৌধুরী টিলা এলাকার ক্ষীরদা সরকার নামে শয্যাশায়ী বৃদ্ধার অভিযোগ চক্রান্ত করছে এলাকার গ্রাম প্রধান চন্দন সরকার। বিষয়টি সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চান তিনি। তিনি বলেন,একমাত্র পঞ্চায়েত প্রধানেৱ অবহেলায় সামাজিক ভাতা থেকে বঞ্চিত বৃদ্ধা।

বারংবার পঞ্চায়েত প্রধানের কাছে যাওয়ার পরেও এবং কাগজপত্র জমা দেওয়ার পরেও মিলছে না ভাতা। এবং স্পষ্টভাবে বলে দিচ্ছেন মিলবে না ভাতা। এভাবেই ভারাক্রান্ত হৃদয়ে বিছানায় শয্যাশায়ী ৯০ বছরের বৃদ্ধা অভিযোগ তুলেন। তিনি কমলাসাগর চৌধুরী টিলা এলাকার ক্ষীরদা সরকার। সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। তিনি আরো বলেন স্বামী অনেক বছর আগে মারা গেছে। নেই কোন ছেলে মেয়ে। এক ছেলে ছিল। সেই ছেলের মৃত্যু হয়েছে গত কয়েক বছর আগে। আর সেই ছেলের দুই ছেলে সন্তান রয়েছে একজন বিবাহিত একজন অবিবাহিত তাদের সাথে থেকেই কোনো রকমে জীবন বাঁচিয়ে রেখেছেন। তিনি আরো বলেন তার নাতিন বর্তমানে তাকে অনেক কষ্ট করে কোন রকমের জীবনটা বাঁচিয়ে রেখেছে।যদিও তাদের চলাফেরা করতে ভীষণ সমস্যা হয়। অন্যের বাড়িতে কাজকর্ম করে কোন রকমের সংসার চালিয়ে যাচ্ছে বর্তমানে। বর্তমানে যেই ঘরটির মধ্যে ক্ষীরদা সরকার কোন রকমে বেঁচে আছে সেই ঘরটির অবস্থাও জরাজীর্ণ। পাশাপাশি রেশন কার্ডটিও বিপিএল ভুক্ত করে দেওয়া হয়নি। অনেক কষ্ট করে কোন রকমের জীবন যাপন করছে। ক্ষীরদা সরকার অভিযোগ কমলাসাগর পঞ্চায়েত প্রধান চন্দন সরকারের কাছে বারবার যাওয়ার পরেও কেন তাকে বয়স্ক ভাতা দেন নি। তিনি এই বিষয়টি বর্তমান সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। বৃদ্ধার অভিমত যদি সামাজিক ভাতাটি ভাগ্যে জোটে তাহলে তার ওষুধ খরচ অন্তত বহন করা সম্ভব হবে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য