Monday, December 5, 2022
বাড়িরাজ্যতিনটি বিধানসভা কেন্দ্রে একাধিক কর্মসূচিতে অংশ নেন মুখ্যমন্ত্রী

তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রে একাধিক কর্মসূচিতে অংশ নেন মুখ্যমন্ত্রী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ২৪ নভেম্বর : বৃহস্পতিবার বিশালগড়ের গকুলনগরে নব নির্মিত ডাঃ শ্যামাপ্রসাদ এগ্রি মার্কেট শেড এবং স্টলের উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী ডাঃ মানিক সাহা। ব্যয় হয় ৩ কোটি ২০ লক্ষ টাকা। দ্বিতল বিশিষ্ট এই মার্কেট শেড-এর দোকানী এবং অন্যান্য লাভ্যার্থীদের হাতে দোকান স্টলের চাবি এবং অটো রিক্সার চাবি তুলে দেন মুখ্যমন্ত্রী। এই এলাকার সার্বিক উন্নয়নে এই মার্কেট বৃহত্তর ভূমিকা পালন করবে বলে আশা ব্যক্ত করেন মুখ্যমন্ত্রী। এগ্রি মার্কেট শেড এবং স্টলের উদ্বোধন করে ঘুরে দেখেন মুখ্যমন্ত্রী সহ অন্যান্য অতিথিরা। উপস্থিত ছিলেন সিপাহীজলা জেলার জেলাশাসক বিশ্বশ্রী বি, কৃষি দপ্তরের ডাইরেক্টর, সিপাহীজলা জেলা  পরিষদের সভাধিপতি সুপ্রিয়া দাস দত্ত, বিশিষ্ট সমাজ সেবী রাজীব ভট্টাচার্য  সহ অন্যান্যরা। মুখ্যমন্ত্রী বলেন ঘোষিত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৫০ শতাংশ স্টল মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত রাখা হবে। ২৫ জনকে অটোর পারমিট সহ চাবি তুলে দেওয়া হয়েছে। বিজেপি সরকারের উন্নয়ন ছাড়া অন্যকোন কথা নেই বলে জানান তিনি।

এরপর সিপাহীজলা জেলার মধুপুরে প্রাইমারি হেলথ এন্ড ওয়েলনেস সেন্টারের নব নির্মিত হাসপাতাল ভবনের দ্বারোদ্ঘাটন করেন মুখ্যমন্ত্রী। এর পাশাপাসি লাভ্যার্থিদের হাতে আয়ুষ্মান কার্ড তুলে দেন তিনি।  ঘুরে দেখনে নতুন ভবনটি। প্রতি ঘড়ে সুশাসন অভিযানের মাধ্যমে মানুষের কাছে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের প্রকল্প গুলি পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। এরজন্য সর্বত্র মেলা করা হচ্ছে। নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে বলতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন প্রতি মন্ত্রী সভার বৈঠকের পর একাধিক চাকুরীর ঘোষণা দেওয়া হচ্ছে। যেখানে দরকার সেখানে চাকুরী প্রদান করছে সরকার। স্বাস্থ্য দপ্তর ছাড়াও অন্যান্য দপ্তর গুলিতে নিয়োগ পক্রিয়া চলছে। বিরোধীদের বলার কিছুই নেই। তারা তথ্য ছাড়া কথা বলে কটাক্ষ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

রাজ্যের শিক্ষাক্ষেত্রে সার্বিক পরিকাঠামো উন্নয়নে বিশেষ পদক্ষেপ  নিচ্ছে বর্তমান রাজ্য সরকার। তারই ধারাবাহিকতায় সিপাহীজলা জেলার কোনাবন দ্বাদশ শ্রেণী বিদ্যালয়ের বিদ্যার্থীদের সুবিধার্থে নবনির্মিত দ্বিতল ভবন উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি “প্রতি ঘরে সুশাসন” মেলার উদ্বোধনও করেন। কোনাবন রাস্তা নিয়ে উস্মা প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন ২০১৭ সালে রাস্তার যা ছিল বর্তমানে ঠিক একই রকম রয়েছে। কেন রাস্তাটি সাড়াই করা হয়নি সেই বিষয়ে খোঁজ খবর নেবেন তিনি। অতিস্বত্তর যাতে রাস্তা করা যায় তা দেখবেন তিনি। রাজ্যের হাসপাতাল গুলির পরিকাঠামোর পরিবর্তন করা হয়েছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। তবে এই নতুন পরিকাঠামোকে দেখে রাখার দায়িত্ব সকলের।

গোলাঘাটি বিধানসভার গোলাঘাটি পঞ্চায়েত মাঠে কৃষি দপ্তরের  পোস্ট হারভেস্ট সেন্টার এবং রুরাল কালেকশন সেন্টার এর শুভ উদ্বোধন হয়। এই দুটি সেন্টারের উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী প্রফেসর ডঃ মানিক সাহা। উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী প্রনজিত সিংহ রায়, বিধায়ক বীরেন্দ্র কিশোর দেববর্মা, সিপাহীজলা জেলার জেলাশাসক বিশ্বশ্রী বি, কৃষি দপ্তরের ডাইরেক্টর, সিপাহীজলা জেলা পরিষদের সভাধিপতি সুপ্রিয়া দাস দত্ত, বিশালগড় ব্লক চেয়ারম্যান ছন্দা দেববর্মা, বিশিষ্ট সমাজসেবক গৌরাঙ্গ ভৌমিক সহ অন্যান্যরা। মুখ্যমন্ত্রী কৃষি দপ্তরের এই দুটি সেন্টার এর পৃথক পৃথক ফলক উন্মোচন এবং ফিতা কেটে উদ্বোধন করে সেন্টারগুলি ঘুরে দেখেন। মুখ্যমন্ত্রী ডক্টর মানিক সাহা বর্তমান সরকারের উন্নয়নমূলক কাজ নিয়ে কথা বলতে গিয়ে বিরোধীদেরকেও তীব্র সমালোচনা করেন। বিগত বাম সরকার মানুষের স্বার্থে কোন কাজ করেনি । তারা সবসময় কেন্দ্রকে দোষারোপ করত । কেন্দ্র থেকে কোন টাকা উন্নয়নের জন্য রাজ্যে আসে না বলে প্রচার চালাতো।  বিগত বাম সরকারের  রাজ্য উন্নয়নের জন্য কোন ধরনের মানসিকতাই ছিল না বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী।  যার ফলে রাজ্যের মানুষ বাম সরকারের পতন ঘটিয়ে বিজেপি আইপিএফটি জোট সরকারকে ক্ষমতায় এনেছে । বর্তমান সরকার রাজ্যের মানুষের স্বার্থে প্রতিনিয়তই কাজ করে চলেছে বলে জানান তিনি।

কমলাসাগর বিধানসভার অন্তর্গত কোনাবন স্থিত রামকৃষ্ণ মিশনে যান মুখ্যমন্ত্রী।  পরম সাধক শ্রীশ্রী রামকৃষ্ণ পরমহংস দেবের ভাবাদর্শে আধ্যাত্মিক পরিমণ্ডলের পাশাপাশি সেবামূলক কাজে এই আশ্রমের অগ্রণী ভূমিকা সব সময় অনুপ্রাণিত করে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য