Saturday, April 13, 2024
বাড়িজাতীয়সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে চীনকে শর্ত দিল ভারত

সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে চীনকে শর্ত দিল ভারত

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক,,২৯ এপ্রিল: ভারত-চীন দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এ মুহূর্তে কতটা শীতল, তার আরও এক প্রমাণ দেখা গেল ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং ও চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী লি শাংফুর বৈঠকে। ওই বৈঠকে চীনা প্রতিরক্ষামন্ত্রীসহ প্রতিনিধিদলের কারও সঙ্গে রাজনাথ সিং করমর্দন করেননি।ভারতের নয়াদিল্লিতে সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশনের (এসসিও) প্রতিরক্ষামন্ত্রীদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে গত বৃহস্পতিবার। এসসিওর অন্য সদস্য দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রীদের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে রাজনাথ সিং যথেষ্ট সৌজন্য দেখিয়েছেন। তবে পার্শ্ববৈঠকে চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী লি শাংফুর সঙ্গে করমর্দন করেননি তিনি।

ওই বৈঠকে রাজনাথ সিং স্পষ্ট বলেছেন, সীমান্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে দুই দেশের সম্পর্ক স্বাভাবিক হতে পারে না। চলমান সম্পর্কেরও উন্নতি হবে না।সরকারি সূত্র অনুযায়ী, ওই বৈঠকে চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী দুই দেশের সামরিক বাহিনীর মধ্যে সহযোগিতা নতুনভাবে শুরু করার এক প্রস্তাব পেশ করেছিলেন। ভারত তা খারিজ করে জানায়, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার (এলএসি) পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ওই প্রস্তাব বিবেচিত হতে পারে, তার আগে নয়।

বৈঠকের পর গত বৃহস্পতিবার রাতে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে রাজনাথ সিং স্পষ্ট জানিয়েছেন, এলএসি পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়া দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের উন্নতির একমাত্র শর্ত। সীমান্তে শান্তি ও সুস্থিতি বজায় থাকলেই সম্পর্কের উন্নতি হওয়া সম্ভবপর। ২০২০ সালের জুন মাসে পূর্ব লাদাখের গালওয়ানে দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর থেকে ভারত ধারাবাহিকভাবে এ কথা চীনকে বলে আসছে।লি শাংফু চীনের নতুন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। ওই সংঘর্ষের পর এই প্রথম চীনের কোনো প্রতিরক্ষামন্ত্রী ভারতে এলেন। দুই প্রতিরক্ষামন্ত্রীর মধ্যেও এটাই ছিল প্রথম বৈঠক।গালওয়ানের পর দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে মোট ১৮টি বৈঠক হয়েছে। শেষ বৈঠক হয় গত রোববার, পূর্ব লাদাখের চুশুল-মলডো সীমান্তে। সেই আলোচনায়ও এলএসিতে শান্তি রক্ষায় দুই দেশ সম্মত হয়েছে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য