Saturday, June 15, 2024
বাড়িরাজ্যসরকারের দায়িত্বজ্ঞানহীনতা নিয়ে আঙ্গুল তুললেন বিরোধী দলনেতা জিতেন্দ্র চৌধুরী, ঘোষণা করলেন সপ্তাহব্যাপী...

সরকারের দায়িত্বজ্ঞানহীনতা নিয়ে আঙ্গুল তুললেন বিরোধী দলনেতা জিতেন্দ্র চৌধুরী, ঘোষণা করলেন সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচির

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক। আগরতলা। ১১ মে : শনিবার সকালে সিপিআইএম রাজ্য সম্পাদক মন্ডলী এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বর্তমান উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়। কারণ গত কয়েকদিনে লক্ষ্য করা যাচ্ছে বিগত বছরগুলোর মত ঝড়-বৃষ্টি না হলেও বিদ্যুৎ নেই বহু এলাকায়। একইভাবে সমস্যা পানীয় জলের।

পাশাপাশি চরম সংকট সৃষ্টি হয়েছে জ্বালানি তেলের। সব মিলিয়ে বহুমুখী সংকট রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে তৈরি হয়ে আছে। এ সমস্যা সমাধান করতে সরকারের কোন ভূমিকা নেই। শনিবার দুপুরে সিপিআইএম রাজ্য কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করে এই কথা বলে সরকারের দায়িত্বজ্ঞানহীনতা নিয়ে আঙ্গুল তুললেন বিরোধী দলনেতা তথা সিপিআইএম রাজ্য সম্পাদক জিতেন্দ্র চৌধুরী। তিনি বলেন, সাড়ে চার থেকে সাড়ে পাঁচ মাস ধরে বিভিন্ন ব্লকে কাজ নেই। বিশেষ করে এই সমস্যা এডিসি এলাকার ব্লকগুলির মধ্যে। এদিকে সরকার পুরোপুরিভাবে নির্বিকার হয়ে আছে। এমনকি এর আগে যে কাজ হয়েছে সে বকেয়ার টাকা এখনো মিটিয়ে দেওয়া হয়নি শ্রমিকদের। এপ্রিল মে মাসে কখনো খরা হয় আবার কখনো বৃষ্টি হয়। সাথে কিছু ঝড় তুফান থাকে। আর এটা কোন এক বছরের আকস্মিক ঘটনা নয়। সবসময়ই এইগুলি হয়ে থাকে।

এর জন্য জনজীবনের অসুবিধা হতে পারে ভেবে সরকারের আগাম প্রস্তুতি সবসময়ই থাকে। এবং যেহেতু এই পরিস্থিতি জন্য কাজকর্ম কম হয় তাই সরকারকে অতিরিক্ত ব্যবস্থা করে রাখতে হয়। কিন্তু সেটা না করার ফলে পেট্রোল সংকট তৈরি হয়েছে। পুলিশকে পেট্রোলের পাম্পের শৃঙ্খলা রক্ষা করতে লাঠিচার্জ করতে হয়েছে। এ ধরনের দৃশ্য আগে কখনো দেখা যায়নি। আর সরকার এদিকে কোন নজর না দিয়ে নির্বাচনে প্রচারে ব্যস্ত আছেন। এবং বক্তৃতা করছেন ত্রিপুরার নাকি উন্নত দেশের পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। সবকিছু সহজ-সরল হয়ে গেছে। কিন্তু এই রাজ্যে উন্নত ত্রিপুরা রেল আসার জন্য রাস্তার অবস্থা খারাপ। তাই এই সংকট তৈরি হয়েছে। সরকারের এ ধরনের দায়বদ্ধ হীনতার বিরুদ্ধে ১৩ মে থেকে ১৮ মে পর্যন্ত রাজ্যের সবকটি মহকুমাতে ডেপুটেশন এবং বিক্ষোভ দেখানো হবে। আগরতলা শহরে এই কর্মসূচিতে অনুষ্ঠিত হবে ১৪ মে। এর পাশাপাশি দাবি জানানো হচ্ছে রেগা ও টুয়েপের কাজ দ্রুত শুরু করতে হবে এবং বকেয়া টাকা মিটিয়ে দিতে হবে।

 তিনি আরো বলেন, ত্রিপুরায় ম্যালেরিয়ার প্রকোপ রয়েছে। রাজ্যের গোবিন্দ বাড়িতে ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যু খবর ও জানা গেছে। তাই ম্যালেরিয়া প্রকোপ এলাকা অর্থাৎ অমরপুর, কাঞ্চনপুর, গন্ডাছড়া সহ যেসব এলাকায় ম্যালেরিয়া থাবা বসানোর সম্ভাবনা রয়েছে সেসব এলাকাগুলি নিয়ে সরকারকে আগে থেকে প্রস্তুত থাকতে হবে। বর্তমানে যে পরিস্থিতি চলছে তা ঠিক নয়। বর্ষার আগে সরকারকে এসব বিষয়গুলি নিয়ে টনক নড়তে হবে বলে দাবি করেন বিরোধী দলনেতা। আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বামফ্রন্টের আহ্বায়ক নারায়ণ কর, সিপিআইএম সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মানিক দে।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য