Wednesday, February 8, 2023
বাড়িজাতীয়মা হারালেন মোদী

মা হারালেন মোদী

স্যন্দন ডিজিটেল ডেস্ক,৩০ডিসেম্বর: ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মা হীরাবেন মোদী গুজরাটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।স্বাস্থ্যের অবনতি হওয়ায় ৯৯ বছর বয়সী এ নারীকে কয়েকদিন আগে পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য গুজরাটের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখানেই শুক্রবার ভোরের আগে মারা যান তিনি।ছয় সন্তানের জননী হীরাবেন ছেলে পঙ্কজের সঙ্গে গান্ধীনগরের কাছে রায়সান গ্রামে থাকতেন।“ঐশ্বর্যময় শতক সমর্পিত হল ঈশ্বরের চরণে,” মায়ের মৃত্যুর পর করা টুইটে মোদী এমনটাই বলেছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।এনডিটিভি জানিয়েছে, বেশকিছু প্রকল্পের উদ্বোধনের জন্য মোদীর পশ্চিমবঙ্গে যাওয়ার কথা থাকলও মায়ের মৃত্যু সংবাদ শুনে তিনি গুজরাট ছুটে যান।ভারতের এ প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন উপলক্ষ ও উৎসবে মায়ের কাছে ছুটে গিয়ে আশীর্বাদ নিতেন।১৮ জুন, হীরাবেন ৯৯ বছরে পড়লে মোদী লিখেছিলেন, মায়ের জীবন ও আত্মত্যাগ তার মন, ব্যক্তিত্ব ও আত্মবিশ্বাস গড়ে দিয়েছিল।

“আমার মা যেমন সাধারণ ছিলেন, তেমনি ছিলেন অসাধারণ। অন্য আর সব মায়ের মতো,” লিখেছিলেন তিনি।গুজরাটে বিধানসভা নির্বাচনের সময় সেখানে যাওয়া মোদীর সঙ্গে তার মাকে সর্বশেষ গত ৪ ডিসেম্বর প্রকাশ্যে দেখা দিয়েছিল।হীরাবেনের মৃত্যুতে ভারতের অনেক রাজনীতিক ও মন্ত্রী শোক জানিয়েছেন।প্রধানমন্ত্রীর মাতৃবিয়োগে ‘গভীর শোকাহত’ হওয়ার কথা জানিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং।“মায়ের মৃত্যু সবার জীবনে এমন শূন্যস্থান তৈরি করে, যা পূরণ অসম্ভব,” লিখেছেন তিনি।ভারতের সাবেক ভাইস-প্রেসিডেন্ট ভেঙ্কাইয়া নাইডু জানিয়েছেন সমবেদনা।

১৯২৩ সালে গুজরাটের মেহসানা জেলার ভিসনগরে জন্মান হীরাবেন।“তার শৈশব ছিল দারিদ্র্য আর বঞ্চনাময়,” লিখেছেন মোদী।কিশোর বয়সেই হীরাবেনের বিয়ে হয়ে যায় দামোদারদাস মুলচান্দ মোদীর সঙ্গে। এই দম্পতি বসবাস শুরু করেন ভিসনগর থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরের ভাড়নগর শহরে।“সেখানে আমরা এত ছোট একটা ঘরে থাকতাম যে, গোসলখানা বা টয়লেট তো দূর, সেখানে কোনো জানালাও ছিল না,” নিজের ব্লগে এমনটাই লিখেছেন মোদী।মায়ের সময়ানুবর্তিতা, পরিচ্ছন্নতা আর কঠোর পরিশ্রমকে অনুপ্রেরণা উল্লেখ করে মোদী আরও লিখেছেন, “কাজ করার সময় তিনি তার প্রিয় ভজন আর দেবদেবীর স্তব গুনগুন করে গাইতেন।”

হীরাবেন রাজনৈতিক বা সরকারি কোনো অনুষ্ঠানে যেতেন না। মোদীর সঙ্গে দুটি অনুষ্ঠানে তিনি হাজির ছিলেন, যার দ্বিতীয়টি ছিল ২০০১ সালে, ছেলের প্রথম গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথে।“তারপর থেকে কোনো অনুষ্ঠানে আমার সঙ্গে ছিলেন না তিনি,” লিখেছেন মোদী।গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থেকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী। অথচ হীরাবেন ছেলে মোদীকে দেখতে দিল্লি যান ২০১৬ সালে, মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ারও দুই বছর পর।মাকে সরকারি বাসভবন ঘুরিয়ে দেখানোর ছবি সেসময় টুইট করেছিলেন মোদী।অঘোষিত সম্পদ ধরতে কয়েক মাস পর বিজেপি সরকার যখন ৫০০ ও ১০০০ রুপির নোট বাতিল করে দিয়েছিল, তখন লাখো ভারতীয়র মতো হীরাবেনও ছুটেছিলেন ব্যাংকে। প্রধানমন্ত্রীর মায়ের ব্যাংকে নোট বদলাতে যাওয়ার ছবি সেসময় ভারতের বিভিন্ন গণমাধ্যমে ছাপাও হয়েছিল।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য