Monday, December 5, 2022
বাড়িবিশ্ব সংবাদক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ ব্যর্থ: ক্ষমা চাইল দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী

ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ ব্যর্থ: ক্ষমা চাইল দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক, আগরতলা, ৬ অক্টোবর: যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যৌথ সামরিক মহড়ার সময় একটি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের পরপরই আকাশে বিধ্বস্ত হওয়ায় দক্ষিণ কোরিয়ার উপকূলীয় নগরী গ্যাংনিউংয়ের বাসিন্দাদের মধ্যে যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছিল, তার জন্য ক্ষমা চেয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী।বিবিসি জানায়, দক্ষিণ কোরিয়ার একটি হাইয়ুনমো-২ ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের পরপরই ব্যর্থ হয় এবং মহড়া চলাকালে বিধ্বস্ত হয়। উত্তর কোরিয়া থেকে ক্রমবর্ধমান হুমকির মধ্যেই এ ঘটনা ঘটায় গ্যাংনিউংয়ের বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে বেশি।তবে ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বস্তের ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি বলে নিশ্চিত করেছে দক্ষিণ কোরিয়ার সেনাবাহিনী। ক্ষেপণাস্ত্রটিতে একটি ওয়ারহেড থাকলেও সেটি বিস্ফোরিত হয়নি। যদিও ঘটনার সাত ঘন্টা পরও সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এ ঘটনা স্বীকার করা হয়নি।পরে এক বিবৃতিতে তারা ক্ষেপণাস্ত্র ব্যর্থ হওয়ার কথা স্বীকার করে নেয় এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়ানোর কারণে দুঃখ প্রকাশ করে।জাপানের ওপর দিয়ে উত্তর কোরিয়ার ছোড়া ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্টা জবাব দিতে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া ওই মহড়া চালিয়েছে।পরমাণু শক্তিধর দেশ উত্তর কোরিয়া মঙ্গলবার মাঝারি পাল্লার একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালায়। যেটি তাদের আগের ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্রগুলোর তুলনায় দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়েছে এবং ২০১৭ সালের পর প্রথমবারের মতো জাপানের ওপর দিয়ে উড়ে গিয়ে সমুদ্রে পড়েছে।

উত্তর কোরিয়ার ওই ক্ষেপণাস্ত্রের কারণে জাপান সরকার বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয় অবস্থান করতে সতর্কবার্তাও জারি করেছিল।তারপরই যুক্তরাষ্ট্র, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া একটি যৌথ সামরিক মহড়ায় অংশ নেয়।সিউল এবং ওয়াশিংটন পূর্ব সাগরেও (যেটি জাপান সাগর ‍নামেও পরিচিত) ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করছে। এই সাগর কোরিয়া উপদ্বীপ এবং জাপানের মধ্যে অবস্থিত।দক্ষিণ কোরিয়ার উপকূলীয় নগরী গ্যাংনিউংয়ের বাসিন্দারা জানান, বুধবার স্থানীয় সময় প্রথম প্রহরে (রাত ১টার দিকে) তারা আকাশে উজ্জ্বল আলোর ঝলকানি দেখেছে এবং তারপরই বিকট বিস্ফোরণের শব্দ পেয়েছে।

সঙ্গে সঙ্গে তারা কয়েকঘণ্টার জন্য অন্ধকারে ডুবে যায়। তখন কেউ কেউ ঠিক কী ঘটেছে সেটা জানতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দেন। কেউ কেউ ঘটনার ছবি ও ভিডিও শেয়ার করেন।একটি ভিডিওতে উজ্জ্বল হয়ে জ্বলতে থাকা আগুন এবং একটু দূরে ধোঁয়ার কুণ্ডলি উড়তে দেখা যায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একজন লেখেন, ‘‘আমি বিস্ফোরণের শব্দে এতটাই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছি যে রাতে ঘুমাতে পারিনি।”মঙ্গলবার ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রসহ এক সপ্তাহে পাঁচটি ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া। ক্ষেপণাস্ত্রগুলো যেখানে পরীক্ষা করা হচ্ছে সেখান দিয়ে উড়োজাহাজ চলাচলের ব্যস্ত পথ গেছে।গত মাসে আইন পাশের মাধ্যমে উত্তর কোরিয়া নিজেদের পরমাণু অস্ত্র শক্তিধর দেশ বলে ঘোষণা করে। পরমাণু অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণের সম্ভাবনাকেও উড়িয়ে দিয়েছেন দেশটির নেতা কিম জং-উন।

সম্পরকিত প্রবন্ধ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য