যুক্তরাজ্যে বেকারত্বের হার তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক, ১৩ অক্টোবর: করোনাভাইরাস মহামারীতে বিপর্যস্ত যুক্তরাজ্যে বেকারত্বের হার তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চে পৌঁছেছে এবং অর্থনীতিবিদদের পূর্বাভাসকেও ছাড়িয়ে গেছেবিবিসি জানায়, এ বছর জুন থেকে অগাস্টের মধ্যে তিন মাসেই বেকারত্বের হার অপ্রত্যাশিতভাবে ১ দশমিক ৪ শতাংশ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ৫ শতাংশে।

যুক্তরাজ্যের জাতীয় পরিসংখ্যান কার্যালয়ের (ওএনএস) হিসাবমতে, এই সময়ে ১৫ লাখ মানুষ বেকার হয়েছে। এ সংখ্যা এক বছর আগের তুলনায় ২০৯,০০০ বেশি।করোনাভাইরাসের মধ্যে মানুষের চাকরির সুরক্ষায় ব্যাপক পরিসরে নেওয়া সরকারের কর্মপরিকল্পনা এখনও শেষ হয়নি। ওদিকে, ভাইরাস সংক্রমণ ফের বাড়তে থাকায় সরকার নতুন বিধিনিষেধ আরোপ করছে, তার মধ্যেই বেকারত্ব লাফিয়ে বাড়ার এই প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

অর্থনীতিবিদরা মহামারীকালে জুলাই নাগাদ তিনমাসে বেকারত্ব ৪ দশমিক ৩ শতাংশ বাড়ার পূর্বাভাস দিয়েছিলেন । কিন্তু বেড়েছে তার চেয়েও বেশি।পরিসংখ্যান বলছে, যুক্তরাজ্যে বেতনভুক্ত কর্মীর সংখ্যা গত মাসে ২০ হাজার বাড়লেও মার্চ থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যকার হিসাবে তা ৬৭৩,০০০ কমেছে।জাতীয় পরিসংখ্যান কার্যালয়ের (ওএনএস) উপ-পরিসংখ্যানবিদ জোনাথন বলেছেন, “মহামারীর শুরু থেকে চাকরি হারানো মানুষ এবং চাকরি খোঁজা মানুষের সংখ্যা লাফিয়ে বেড়েছে। সদ্য চাকরি হারানো মানুষের সংখ্যাও ঊর্ধ্বমুখী।”ওএনএস এর পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, চাকরি খোয়ানো মানুষের সংখ্যা তিন মাসে ১১৪,০০০ থেকে রেকর্ড সংখ্যক বেড়ে হয়েছে ২২৭,০০০। ২০০৯ সাল থেকে এ সংখ্যা সর্বোচ্চ।গবেষণা ও পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠান ‘রিজল্যুশন ফাউন্ডেশন’ এর এক অর্থনীতিবিদ বলেছেন, “দেশজুড়ে লকডাউনের বিধিনিষেধ বাড়তে থাকায় অর্থনীতি দুর্বল হয়ে পড়ছে। আগামী মাসগুলোতে আরও বেশি বেকারত্বের মুখে পড়ার ব্যাপারে আমাদের প্রস্তুত থাকা উচিত।”