বন্দে ভারত চ্যানেলের উদ্বোধন

স্যন্দন প্রতিনিধি। আগরতলা। ১৭ মে।  রাজ্যে চলছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। স্কুল-কলেজ সহ সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। কিন্তু ছাত্র-ছাত্রীদের স্বার্থে সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হলো শিক্ষা বিষয়ক একটি বিদ্যুৎতিক চ্যানেল। চ্যানেলটি মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের অনলাইন ক্লাস করানো হবে। অনলাইন চ্যানেলটির নাম দেওয়া হয়েছে বন্দে ত্রিপুরা। ২৪ ঘন্টা চ্যানেলটি মাধ্যমে শিক্ষা বিষয়ক বিভিন্ন বিষয় ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে তুলে ধরা হবে।

 সোমবার সচিবালয়ে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে চ্যানেল শুভ উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। তিনি বক্তব্য রেখে বলেন ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা বিষয়ক দৈনন্দিন জীবন সরাসরি সম্প্রসারণ করা হবে। রাজ্যের শিক্ষা ব্যবস্থা বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে পিছিয়ে যায় নি। ২০১৮ সালে সরকার প্রতিষ্ঠার পর ২৪ টি বিষয়ে নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। জাতীয় স্তরে ছাত্র ছাত্রীদের সাথে রাজ্যের ছাত্র-ছাত্রীদের পৌঁছে দেওয়ার দিকে গুরুত্ব দিয়ে সরকার একাধিক বিষয়ে নতুন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। বেশকিছু সরকারি স্কুলে সরাসরি সি বি এস ই নিয়মাবলী নিয়ে আসা হয়েছে। ১৩২ টি ইংরেজি মাধ্যম স্কুল করা হয়েছে। ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য স্পোকেন ইংলিশের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কারণ উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে ইংরেজির প্রয়োজন। নয়তো সাফল্য আসে না। এগুলি রাজ্যের জন্য ইতিহাস হয়ে থাকবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য পূর্বের সরকার দীর্ঘ ২৫ বছর কিছুই করেনি। শুধুমাত্র গরিব মেহনতি মানুষের কথা বলে স্লোগান তুলে এসেছে। এমনকি রবীন্দ্র সংগীত প্রেমীরা ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুল থেকে ফিরে আসার পর রবীন্দ্রসঙ্গীত শেখায় সময়টুকু দিতো না। তাই ছাত্রছাত্রীরা যাতে রবীন্দ্র সংগীতের প্রতি আকর্ষিত হতে পারে সেদিকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে স্কুলের সময় পরিবর্তন করেছে। সরকার এখানেই থেমে নেই। অনলাইন ক্লাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এছাড়াও নতুন দিশা, নবম শ্রেণীর সমস্ত ছাত্রীদের বাইসাইকেল বিতরণ সহ একাধিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আর এ ধরনের উদ্যোগ পূর্বে ২৫ বছরে নেওয়া হয়নি। শিক্ষার মান উন্নয়ন করার জন্য একের পর এক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সরকার। বিরোধীরা তা দেখে সমালোচনা করছে। তাই মুখ্যমন্ত্রী সেসব বিরোধীদের মানসিকতা নিয়ে তীব্র সমালোচনা করেন এদিন। শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। শিক্ষা এগিয়ে নিয়ে যেতে এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থা নতুন পালক যুক্ত হয়েছে। তিন বছর পূর্বে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। টেলিভিশনে পাশাপাশি ইউটিউবেও চ্যানেলটি সম্প্রসারণ করা হবে। রাজ্যের জন্য এটা একটা অত্যন্ত শুভদিন বললেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত শিক্ষামন্ত্রী রতন লাল নাথ। তিনি আরো বলেন গত ১৪ মাস যাবত স্কুল হয় নি। শিক্ষাক্ষেত্রে ৩৬ শতাংশ পিছিয়ে গেছে রাজ্য। পাশাপাশি আর্থিক দিকেও ক্ষতি হয়েছে। তাই ছাত্র-ছাত্রীদের স্বার্থে বন্দে ত্রিপুরা খোলার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আপাতত চ্যানেলে রেকর্ড ক্লাস চলবে। জুন মাস থেকে  সরাসরি সম্প্রসারণ করা হবে। দেশে আর অন্য কোন রাজ্যে এধরনের পরিষেবা ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নেই। ৯০ শতাংশ এলাকা এতে কাজে আসবে। বাকি ১০ শতাংশ এলাকা জন্য কাজ চলছে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এদিন মুখ্যমন্ত্রী চ্যানেলটি শুভ উদ্বোধন করেন। এদিন অনুষ্ঠানে এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা দপ্তরের সচিব ইউ কে চাকমা, উচ্চ শিক্ষা দপ্তরের সাজু ওহাদি এবং রাজ্যের মুখ্যসচিব মনোজ কুমার সহ অন্যান্যরা।