ডাক্তার সাজতে ভালো লাগে, ডাক্তার সেজে আটক যুবক

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক, ৩ মে : রাজধানীর আই জি এম হাসপাতালে ভুয়া ডাক্তার সেজে ঘোরাফেরা করার সময় নিরাপত্তা রক্ষীদের হাতে আটক এক যুবক। ভুয়া ডাক্তারের নাম সাগর দেবনাথ। এতেই শেষ নয়। এই যুবক সপ্তম শ্রেণী উত্তীর্ণ। তারপর আর পড়াশুনা করেনি। আই জি এম -এর বেসরকারি নিরাপত্তা রক্ষীরা জানান বিগত কয়েকমাস যাবৎ হাসপাতালের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়াচ্ছে এই যুবক।

নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে এতদিন চলত সে। তবে মাঝে মধ্যে হাসপাতালে আসত। কয়েকমাস আগে এক বেসরকারি নিরাপত্তা রক্ষীর কাছ থেকে ডাক্তার সেজে এক হাজার টাকা ধার নেয় সাগর। সেই টাকা আর দেওয়ার নাম গন্ধ নেই। এরপর হাসপাতালের বেসরকারি নিরাপত্তারক্ষীরা বিষয়টি আঁচ করতে পেরে সাগরের গতিবিধির উপর নজর রাখতে শুরু করে। সোমবার ফের হাসপাতালে আসে প্রতারক সাগর। হাসপাতালের ভেতর থেকে বেড়িয়ে যাওয়ার সময় তাকে আটক করে নিরাপত্তা রক্ষীরা। জিজ্ঞাসাবাদ চালাতেই আসল রহস্য বেড়িয়ে আসে। সাগর জানায় তার ডাক্তার সাজতে ভালো লাগে। তাই মাঝে মধ্যে হাসপাতালে আসে ডাক্তার সেজে। এক বেসরকারি নিরাপত্তা রক্ষীর কাছ থেকে টাকা নেওয়ার কথাও শিকার করে সাগর।

এদিকে আই জি এম হাসপাতালে ছেলেকে আটক করার খবর পেয়ে আসে সাগরের মা মালতি দেবনাথ। ছেলের জন্য সাফাই গাইবার চেষ্টা করে। মা'র দাবি ছেলের মানসিক সমস্যা আছে। তার জন্য শিলচর নিয়ে যাওয়া হয়েছিল চিকিৎসার জন্য। ডাক্তার জানিয়েছিল যা ওষুধ দেওয়া হয়েছে তাতে সুস্থ হয়ে যাবে ছেলে। সেই মোতাবেক আই জি এম হাসপাতালে তার চাকুরীর জন্য কথা হচ্ছিল। জানা গেছে তার দিদা আই জি এম হাসপাতালে নার্স হিসাবে কর্মরত ছিল। সেই সুবাদে চাকুরীর চেষ্টা করে তাঁরা। কিন্তু ছেলের মানসিক অবস্থার কোন পরিবর্তন হয়নি। মালতি দেবনাথ জানান তিনি পেশায় আয়ার কাজ করেন। কৃষ্ণনগর ভাড়া বাড়িতে থাকেন। এই ঘটনায় হাসপাতাল চত্বরে চাঞ্চল্য ছড়ায়। এই ভাবে ডাক্তার সেজে মানুষের সঙ্গে প্রতারনার ঘটনায় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি উঠেছে।