চূড়ান্ত নাটকীয়তা, নন্দীগ্রাম জয় শুভেন্দুর! 'কারচুপিতে' ক্ষুব্ধ মমতা

 

 

 

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক, ২ মে: বাংলার বিধানসভা ভোটের সবচেয়ে হেভিওয়েট কেন্দ্র। একদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অপরদিকে একদা তাঁরই সেনাপতি শুভেন্দু অধিকারী । ভোট পূর্বের শুরু থেকেই সারা দেশের নজর নন্দীগ্রামে। আর সেই হেভিওয়েট কেন্দ্রেই ফল প্রকাশের সারাদিন ধরে চলল মহানাটক।

শুরুর দিকে শুভেন্দু এগিয়ে থাকলেও পরে ফের এগিয়ে যান মমতা। ফের একবার জেতার পথে এগোন শিশির-পুত্র। এরই মধ্যে বহু সংবাদমাধ্যম সম্প্রচার করে ফেলে নন্দীগ্রাম জয়ী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ১২০০ ভোটে মমতার 'জয়' নিয়ে তৃণমূল স্বস্তির শ্বাস নিচ্ছে, তখনই ফের খবর আসে জিতেছেন শুভেন্দু অধিকারীই। সেই ব্যবধান বলা হয় ১৭৩৬ ভোটের।যদিও নন্দীগ্রামের ভোটগণনা ঘিরে বিভ্রান্তি কিছুতেই কাটছে না। আপাতত ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে নন্দীগ্রামে। নতুন করে গণনা হতে পারে নন্দীগ্রাম। তবে, এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন রিটার্নিং অফিসার। এমনই জানিয়েছেন রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক আরিজ আফতাব। কিন্তু তারপরই নির্বাচন কমিশন ঘোষণা করে, নন্দীগ্রামে জিতেছেন শুভেন্দু অধিকারীই। পুনর্গণনা হবে না বলেই জানিয়ে দিয়েছে কমিশন।

তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় নয়, নন্দীগ্রামে এবার নোটার ভোট পড়েছে ১০৮৯টি। যদিও এখনও পর্যন্ত নিজের 'হার' হলেও তাঁর দল যে দুশোর বেশি আসন পেতে চলেছে এই বিষয়ে যখন প্রায় আর সন্দেহই নেই, নন্দীগ্রাম নিয়ে মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় বলেন, "নোংরা খেলা খেলেছে। সব অফিসার আমায় বলেছে। আমি সুপ্রিম কোর্টে যাব।" পাশাপাশি তিনি এও বলছেন, "আমি নন্দীগ্রামের জন্যে লড়াই করেছি। যা রায় দিয়েছে আমি মেনে নেব। কিন্তু ওখানে ভোট লুঠ হয়েছে।"এরপরই একটি বৈদ্যুতিন সংবাদমাধ্যমকে মমতা আরও বলেন, 'বারবার ডাটা দিয়েও বদল করা হয়েছে নন্দীগ্রামে। দল মনে করছে, এর মধ্যে কিছু একটা গণ্ডগোল রয়েছে। নন্দীগ্রাম নিয়ে আমি আগেও যখন প্রশ্ন তুলেছিলাম কেউ বিশ্বাস করেননি৷ গোটা রাজ্যে এক রকম ফল, আর একটা কেন্দ্রে অন্য ফল হয় কেমন করে? এটা হতে পারে না৷ ওখানে ভোট লুট চলছে, কিছু কারচুপি আছেই৷' তাই নন্দীগ্রামে আরও একবার ভোট গণনা করা হোক, এমনটাই চাইছে তৃণমূল।