অ্যাডিলেডে বিপর্যয়! কী করে দেশে ফিরছেন বিরাট কোহলি ? প্রশ্ন তুলে দিলেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার

স্যন্দন ডিজিটাল ডেস্ক, ২২ ডিসেম্বর:স্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজের   প্রথম টেস্টে লজ্জাজনক হার। এমনকী এক ইনিংসে সর্বনিম্ন স্কোরের লজ্জার ইতিহাস লিখেছে বিরাট কোহলির টিম। নিন্দুকেরা বলছেন, অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ভারতীয় দল টেস্ট সিরিজে চুনকাম হতে পারে। অর্থাৎ, ভারতীয় দল ৪-০ তে সিরিজ হেরে দেশে ফিরতে পারে! সিরিজের আগামী ম্যাচগুলোতে বিরাট কোহলি  থাকছেন না। পিতৃত্বকালীন ছুটিতে দেশে ফিরে আসছেন ভারত অধিনায়ক। ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি  হয়তো দুঃস্বপ্নেও ভাবতে পারেননি যে ৩৬ রানে অলআউট হওয়ার চরম লজ্জা নিয়ে দেশে ফিরতে হবে তাঁকে। জাহাজ ডুবছে! কী করে দেশে ফিরছেন বিরাট কোহলি? প্রশ্ন তুলে দিলেন প্রাক্তন জাতীয় ক্রিকেটার দিলীপ দোশী।

অ্যাডিলেডে পিঙ্ক বল টেস্টে প্রথম ইনিংসে লিড নেওয়ার পরেও দ্বিতীয় ইনিংসে দুপুর রোদে বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটিং লাইন-আপ ভেঙে পড়ে বালির ঘরের মতো। ৩৬/৯ শেষ ভারতের দ্বিতীয় ইনিংস। ১৯৭৪ সালে ইংরেজদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দল দ্বিতীয় ইনিংসে সব থেকে কম রান করেছিল। সেই রান ছিল ৪২। এতদিন পর্যন্ত সেই লজ্জার অধ্যায় ভারতীয় ক্রিকেট ইতিহাসে প্রায় কবর হয়ে গিয়েছিল। পুরনো লজ্জার ইতিহাস আবার কবর খুঁড়ে উঠে এসেছে ডিসেম্বরের সকালে। সে অধ্যায় মুছে লেখা হয়ে গেল নতুন ইতিহাস। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ভারত অ্যাডিলেডে প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৬/৯।  প্রথম সন্তানের জন্মের সময় স্ত্রী অনুষ্কা শর্মার পাশে থাকতে চান ভারত অধিনায়ক। নতুন বছরের শুরুতেই বিরাট-অনুষ্কার জীবনে আসবে নতুন অতিথি।অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে প্রথম টেস্ট খেলে পিতৃত্বকালীন ছুটি নিয়ে কোহলির দেশে ফিরে আসার প্রসঙ্গে ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক কপিল দেব, সুনীল গাভাসকররা সমালোচনায় মুখর হয়েছেন। অনেকেই আবার বিরাটের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন। এবার ভারত অধিনায়ককে একহাত নিলেন প্রাক্তন জাতীয় ক্রিকেটার দিলীপ দোশী । ভারতীয় ব্যাটিং এবং দল যখন ডুবছে, জাহাজ ডোবার মতো পরিস্থিতিতে জাতীয় দায়িত্বের পরিবর্তে ব্যক্তিগত চিন্তায় কী করে দেশে ফিরছেন কোহলি। এই প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন দিলীপ দোশী ।তিনি  বলেন,"সন্তান হওয়ার সময় স্ত্রীর পাশে থাকা অবশ্যই বাবা হিসেবে দায়িত্ব। কিন্তু দেশের দায়িত্ব থাকলে এই আবেগ বর্জন করতে হয়। এই পরিস্থিতিতে আমি থাকলে কিছুতেই দেশে ফিরতাম না। আমার কাছে সবার আগে জাতীয় কর্তব্য।"